On being a photographer, ফটোগ্রাফি ক্রেজ, শখ, ক্যামেরা

ফটোগ্রাফি বই রিভিউ : অন বিয়িং এ ফটোগ্রাফার

Blog, Book Reviews , , ,
আজকাল ডিএসএলআর ক্যামেরা যে কি পরিমান সহজলভ্য এবং সুলভ জিনিস হয়ে দাড়িয়েছে সেটা চারপাশে তাকালেই বেশ টের পাওয়া যায়!!
 
দামী দামী ক্যামেরার চকচকে সব ছবির ভীড়ে আজকাল থৈ পাওয়াই মুশকিল! অনেকেই এসব ক্যামেরা কিনছেন শখে, কেউ ক্রেজে, কেউ স্টাইল দেখাতে গিয়ে, কেউ বা সময়ের দাবি বলেও দাবি করছেন।
 
অনেকে আছেন, তাদের বেশিরভাগই অকেশনাল ছবি তোলেন, এর বাইরে যান না। দুঃখজনক ভাবে তারা তাদের উন্নত মানের গিয়ারটিকে ব্যবহার করছেন কমপ্যাক্ট ক্যামেরার মত করে!
 
এর বাইরে কিছু মানুষ আছেন, যারা সত্যিই সিরিয়াস ফটোগ্রাফি নিয়ে। তারা আসলে ছবি তুলতে নয়, ছবি দিয়ে কিছু বোঝাতে চান, কিছু বক্তব্য দিতে চান একটি ছবির মাধ্যমে।
 
ভাল ছবি তোলা শেখার জন্য প্রয়োজন ভাল প্রশিক্ষন, সেটা হতে পারে কোন ভাল ট্রেইনিং সেন্টার থেকে নয়ত কোন ভাল ফটোগ্রাফারের সাথে কাজ করার মাধ্যমে অথবা নিজে থেকে প্রচুর পরিশ্রম করে, বিভিন্ন মাধ্যম থেকে জেনে, শিখে কিছু করার চেষ্টা করা।
 
একজন ভাল শিক্ষক অথবা গাইড পওয়া এত সহজ নয়। ভরসা বই। বাংলায় এ বিষয়ে বেশি বই নেই। ইংরেজিতে অনেক আছে অবশ্য। কিন্তু পাচ্ছেন কোথায়? পেলেও, হাজার হাজার বই এর ভীড়ে আপনি জানছেন কিভাবে আপনি সত্যিই কিছু শিখতে পারবেন সেই বই থেকে? সব বইই ভাল নয়, ভাল বই খুজে নিতে হয়।
 
একটি বই প্রস্তাব করছি আপনাদের সামনে, অন বিয়িং এ ফোটোগ্রাফার: এ প্রাকটিক্যাল গাইড।
 
দুজন ফোটোগ্রাফার, ডেভিড হার্ণ ও বিলি জে ঘরোয়া আলোচনার ভঙ্গিতে তাদের অভিজ্ঞতার আলোকে ফোটোগ্রাফির বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেছেন। একটানে বসে পড়ার মত একটি বই।  ফটোগ্রাফি করতে গিয়ে একজন ফোটোগ্রাফারকে যে সব চ্যালেন্জ এর মুখোমুখি হতে হয় সেইসব সহ নানারকম ভীষণ জরুরী তথ্য নিয়ে এই বইটি।
 
ছোট্ট একটি অংশ কোট করছি বই থেকে।
 
“একজন ফোটোগ্রাফার যখন রাস্তা দিয়ে হাটে, সে শুধু হাটে না, আরও অনেক কিছু করে। তার হাটার একটি লক্ষ থাকে, একটি উদ্দেশ্য থাকে। তাদের হাটতে হয় অনেক বেশি, ঘুরতে হয় অনেক বেশি। তাই, একজোড়া ভাল, আরামদায়ক জুতা হতে পারে ক্যামেরার পরে তার জন্য দ্বিতীয় প্রয়োজনীয় জিনিস । একজন লেখক তার ঘরে বসেই তার কাজ করতে পারেন, কিন্তু ফোটোগ্রাফারকে সেই জায়গায় সশরীরে উপস্থিত থাকতে হয়। সুতরাং যাচ্ছেতাই পরিমান হাটাহাটি না করলে একজন ফোটোগ্রাফার তার বিষয় খুজে পাবেন, এটা না ভাবাই ভাল।”
 
উপরওয়ালাই জানেন এই ভদ্রলোক কতগুলো জুতোর শুকতলা খুইয়েছেন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *